Translate

Wednesday, January 29, 2020

নির্ভয়া : রাষ্ট্রপতির বোধবুদ্ধি নিয়ে প্রশ্ন - যৌন নির্যাতনের অভিযোগ


Image credit Google

দোষী মুকেশের রাষ্ট্রপতিকে চ্যালেঞ্জ করে আবেদন :

রাষ্ট্রপতি প্রাণভিক্ষার আবেদন প্রত্যাখ্যান করার পরে দোষী মুকেশ সুপ্রিম কোর্টে রাষ্ট্রপতিকে চ্যালেঞ্জ করে সেই সিদ্ধান্ত পর্যালোচনা করার আবেদনটি দায়ের করেছিলেন।

মুকেশের মূল অভিযোগ:

আইনজীবী বলেছিলেন- মুকেশকে নির্জন সেলে রাখা হয়েছিল, মারধর করা হয়েছিল , প্রাণভিক্ষার আবেদন খারিজ করার সময় প্রক্রিয়াটি নিয়ম মেনে হয়নি ও রাষ্ট্রপতি নিজের বিবেচনা প্রয়োগ করেননি।

কেন্দ্রের যুক্তি-

কখনও কখনও মৃত্যুদণ্ডের সাজাপ্রাপ্ত ব্যক্তির স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটে, তবেএক্ষেত্রে মুকেশের স্বাস্থ্য একেবারেই ঠিক আছে।


Image credit Google

রাষ্টপতির বোধবুদ্ধি নিয়ে প্রশ্ন - যৌন নির্যাতনের অভিযোগ:

প্রাণভিক্ষার আর্জি খারিজ হওয়ার পরে মঙ্গলবার নির্ভায়ার দোষী মুকেশের নতুন পর্যালোচনার আবেদনটি সুপ্রিম কোর্টে শুনানি হয়। বিচারপতি আর ভানুমথি, বিচারপতি অশোক ভূষণ এবং বিচারপতি এএস বোপান্নার বেঞ্চ এর সামনে মুকেশের আইনজীবী অঞ্জনা প্রকাশ বলেন যে , প্রাণভিক্ষার আবেদনটি প্রত্যাখ্যান করার সময় মনোযোগ দেওয়ার দরকার ছিল। এতে বেঞ্চ তাকে প্রশ্ন করেন যে, আপনি কীভাবে বলতে পারেন যে রাষ্ট্রপতি এমনটি করার সময় কিছু চিন্তা না করেই করেছেন ? উত্তরে , অঞ্জনা প্রকাশ যুক্তি দিয়েছেন যে জেলে মুকেশের সাথে খারাপ ব্যবহার করা হয়েছে এবং মারধর করা হয়েছে। এর বিরোধিতা করে কেন্দ্রের পক্ষে সলিসিটার জেনারেল তুষার মেহতা বলেন যে এই জাতীয় জঘন্য অপরাধে অপরাধী দুর্ব্যবহারের কারণে দয়া প্রার্থনার অধিকারী হতে পারে না।
নির্ভয়া মামলায় দোষী সাব্যস্ত হওয়া মুকেশ সিংহ রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ এর নিকট প্রাণভিক্ষার প্রার্থনা করেছিলেন।কিন্তু রাষ্ট্রপতি তার প্রাণভিক্ষার আবেদন নাকচ করে দেন। এ নিয়ে মুকেশ সুপ্রিম কোর্টের নিকটে নতুন পুনঃবিচারের দাবি জানান। আগামী বুধবার আদালত এ বিষয়ে রায় দেবে। ১ লা ফেব্রুয়ারি সকাল ৬ টায় এই চার আসামিকে তিহার জেলে ফাঁসি দেওয়া হবে বলে এখনো পর্যন্ত ঠিক হয়ে আছে আদালতের কক্ষে কে কী বলল

১) দোশি মুকেশ: বলেন : আপনি কারও জীবন নিয়ে খেলছেন ।

মুকেশের আইনজীবীর সওয়াল :
সিনিয়র অ্যাডভোকেট অঞ্জনা প্রকাশ বলেন যে প্রাণভিক্ষার আবেদনের সমস্ত তথ্য রাষ্ট্রপতির সামনে রাখা হয়নি। রাষ্ট্রপতির বিচার বিবেচনার বিষয়টি কোর্টের পর্যালোচনার আওতায় আসে। আপনাকে প্রতিটি পদক্ষেপে আপনার মনোনিবেশ করতে হবে (প্রাণভিক্ষার আবেদনের সিদ্ধান্তের সাথে সম্পর্কিত)।আপনি কারও জীবন নিয়ে খেলছেন। মুকেশকে নির্মমভাবে জেলে পিটিয়ে একাকী বন্দী করে রাখা হয়েছিল। সহ-অভিযুক্ত অক্ষয়ের সাথে যৌন করতে বাধ্য হন তিনি।তাকে যৌন নির্যাতন করা হয়েছিল। এসব তথ্য রাষ্ট্রপতির সামনে রাখা হয়নি। প্রাণভিক্ষার আবেদনটি বিবেচনা করার সময়, কিছু অপ্রত্যাশিত পরিস্থিতি, নির্জন সেল এবং প্রক্রিয়াগত গাফিলতিকে বাইপাস করা হয়েছিল। বাহ্যিক বিবেচনার ভিত্তিতে প্রাণভিক্ষার আবেদনটি প্রত্যাখ্যান করা হয়েছিল। এই অর্থে এটি বিকৃত, একতরফা এবং সত্যের বাইরে।
২) কেন্দ্র:বলেন : স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সমস্ত নথি রাষ্ট্রপতির কাছে প্রেরণ করেছিল,
সলিসিটার জেনারেল তুষার মেহতা বলেছিলেন - রাষ্ট্রপতি নির্ভয়া মামলায় সমস্ত আদালতের সিদ্ধান্তের দিকে নজর রেখেছিলেন । রাষ্ট্রপতির প্রাণভিক্ষার আবেদনটি উপস্থিত করার সময় , তাকে প্রথমে সমস্ত বিষয়টি জানিয়ে সন্তুষ্ট করতে হয়েছিল, প্রতিটি প্রক্রিয়াই তিনি জানেন । এই জাতীয় পর্যালোচনার ক্ষেত্রে আদালতের ক্ষমতা অত্যন্ত সীমাবদ্ধ। করুণার আবেদনে বিলম্ব অমানবিক প্রভাব ফেলতে পারে। নথি, প্রমাণ এবং রায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক রাষ্ট্রপতির কাছে প্রেরণ করেছিল। কখনও কখনও মৃত্যুদণ্ড পাওয়া দোষীর স্বাস্থ্য ও অবস্থার এতটাই অবনতি হয় যে তাকে মৃত্যদণ্ড দেওয়া যায় না, তবে দোষী মুকেশের স্বাস্থ্য যথেষ্ট ভ।ল।
৩) সুপ্রিম কোর্ট বললেন : কেউ কীভাবে বলতে পারেন যে রাষ্ট্রপতি তার বুদ্ধি (মস্তিষ্ক ) ব্যবহার করেননি ?
যখন মুকেশের আইনজীবী যুক্তি দিয়েছিলেন যে প্রাণভিক্ষার আবেদন খারিজ করার ক্ষেত্রে রাষ্ট্রপতি নিজ মস্তিষ্ক ব্যবহার করেননি তখন , তিন বিচারকের বেঞ্চ তাকে প্রশ্ন করেন - আপনি কীভাবে বলতে পারেন যে রাষ্ট্রপতির কাছে সঠিক তথ্য উপস্থাপন করা হয়নি ? এবং, আপনি কীভাবে বলতে পারেন যে রাষ্ট্রপতি করুণার আবেদনটি প্রত্যাখ্যান করার সময় তাঁর মন ও বোধ বুদ্ধি ব্যবহার করেননি ?
আবেদনের প্রাথমিক শুনানির দাবিতে সুপ্রিম কোর্ট বলেছিল যে মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত আসামীর জন্য আদালত এটি সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে বিচার করবে -

Image credit Google
মুকেশের প্রাণভিক্ষার আবেদন খারিজ হওয়ার পর সে রায় পুনঃ -পর্যালোচনার জন্য শনিবার সুপ্রিম কোর্টে যান। সাজাপ্রাপ্ত আসামি মুকেশের আইনজীবী বৃন্দা গ্রোভার বলেছিলেন যে শত্রুঘ্ন চৌহান মামলায় সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে আমরা ৩২ অনুচ্ছেদের অধীনে আদালতের কাছে প্রাণভিক্ষার আবেদনের মামলায় বিচার পুনঃ - পর্যালোচনা চেয়েছি। সোমবার সুপ্রিম কোর্ট মুকেশের আইনজীবীকে এর জন্য অবিলম্বে রেজিস্ট্রি করার জন্য বলেছিল । আদালত বলেছিল যে ১ ফেব্রুয়ারি কাউকে ফাঁসি দেওয়া হলে এই বিষয়টিকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেওয়া উচিত । আগামী বুধবার এবিষয়ে সর্বোচ্চ আদালতের রায় জানা যাবে।

No comments:

Post a Comment

Thank You .Please do not enter any spam link in the comment box.

Don't Miss It !

How to communicate with the YouTube team? How to email the Creator Support team from YouTube

  How to communicate with the YouTube team? How to email the Creator Support team from  YouTube Access your  YouTube  channel . Tap your pro...